Skip to content
Home » MT Articles » কচুর লতির পুষ্টিউপাদান, উপকারিতা, অপকারিতা ও রেসিপি।

কচুর লতির পুষ্টিউপাদান, উপকারিতা, অপকারিতা ও রেসিপি।

কচুর লতি

কচুর লতি

কচুর লতি বা মুখি লতি বা কচু শাক, বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় সবজি। এটি কচুর গাছের লতি থেকে তৈরি হয়। কচুর লতির রঙ সাদাটে বেগুনি হয় এবং এটি লম্বা ও চ্যাপ্টা আকৃতির। এটি পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এবং স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

কচুর লতির পুষ্টিগুণ/পুষ্টিউপাদান:

কচুর লতির পুষ্টিউপাদান টেবিল (প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁচা কচুর লতি)
পুষ্টিউপাদানপরিমাণ
শক্তি৩৬ ক্যালোরি
প্রোটিন২.২ গ্রাম
চর্বি০.১ গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট৮.৪ গ্রাম
ডায়েটারি ফাইবার৩.৩ গ্রাম
ভিটামিন এ৩০০ মাইক্রোগ্রাম
ভিটামিন সি৩০ মিলিগ্রাম
ভিটামিন কে১৫ মাইক্রোগ্রাম
ক্যালসিয়াম৫০ মিলিগ্রাম
লোহা১.৫ মিলিগ্রাম
ফসফরাস৪০ মিলিগ্রাম
পটাশিয়াম৪০০ মিলিগ্রাম
কচুর লতির পুষ্টিগুণ

দ্রষ্টব্য:

  • উপরের তথ্য কাঁচা কচুর লতির জন্য। রান্না করার পর পুষ্টিউপাদানের পরিমাণ কিছুটা পরিবর্তিত হতে পারে।
  • এই তথ্য একটি অনুমান। বিভিন্ন ধরণের কচুর লতির পুষ্টিউপাদানের পরিমাণ কিছুটা পরিবর্তিত হতে পারে।

কচুর লতির উপকারিতা:

কচুর লতি, বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় সবজি যা পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এবং স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

কচুর লতির পুষ্টিগুণ:

  • ভিটামিন: কচুর লতিতে ভিটামিন এ, সি, কে এবং অন্যান্য ভিটামিন প্রচুর পরিমাণে থাকে।
  • খনিজ: কচুর লতিতে ক্যালসিয়াম, লোহা, ফসফরাস, পটাশিয়াম এবং অন্যান্য খনিজ পদার্থ প্রচুর পরিমাণে থাকে।
  • ডায়েটারি ফাইবার: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটারি ফাইবার থাকে।

আরোও পড়ুন

লাল শাকের পুষ্টিগুণ, উপকারিতা ও অপকারিতা।

কচুর লতির স্বাস্থ্য উপকারিতা:

  • কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটারি ফাইবার থাকে যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে।
  • হজমশক্তি উন্নত করে: কচুর লতি হজমশক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে।
  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।
  • হাড়ের গঠন শক্ত করে: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে যা হাড়ের গঠন শক্ত করতে সাহায্য করে।
  • রক্তশূন্যতা দূর করে: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে লোহা থাকে যা রক্তশূন্যতা দূর করতে সাহায্য করে।
  • ত্বক ও চুলের যত্ন করে: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ থাকে যা ত্বক ও চুলের যত্ন করে।
  • হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়: কচুর লতিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে: কচুর লতি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।
  • ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করে: কচুর লতিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধি রোধ করতে সাহায্য করে।
কচুর লতির উপকারিতা

কচুর লতি ব্যবহারের কিছু টিপস:

  • কচুর লতি কেনার সময়, তাজা ও শক্ত লতি কিনুন।
  • কচুর লতি রান্না করার আগে ভালো করে ধুয়ে নিন।
  • কচুর লতি বিভিন্ন ধরণের খাবারে ব্যবহার করা যায়, যেমন তরকারি, ভর্তা, ঝোল, ইত্যাদি।
  • কচুর লতি স্বাদেও বেশ সুস্বাদু।

কচুর লতির অপকারিতা:

কচুর লতি, যা মুখি লতি বা কচু শাক নামেও পরিচিত, পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ একটি জনপ্রিয় সবজি হলেও, এর কিছু অপকারিতাও রয়েছে যা বিবেচনা করা উচিত।

সম্ভাব্য অপকারিতা:

  • গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টাইনাল সমস্যা: কচুর লতিতে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটারি ফাইবার থাকে, যা কিছু লোকে পেট ফোলাভাব, গ্যাস, এবং ডায়রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।
  • অ্যালার্জি: কিছু লোকের কচুর লতির প্রতি অ্যালার্জি থাকতে পারে, যার ফলে ফুসকুড়ি, চুলকানি, এবং শ্বাসকষ্টের মতো লক্ষণ দেখা দিতে পারে।
  • কিডনি স্টোন: কচুর লতিতে অক্সালেট নামক একটি যৌগ থাকে, যা কিডনি স্টোন গঠনে অবদান রাখতে পারে। যাদের কিডনি স্টোনের ইতিহাস আছে তাদের কচুর লতি সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত।
  • ঔষধের সাথে মিথস্ক্রিয়া: কচুর লতি কিছু ঔষধের সাথে মিথস্ক্রিয়া করতে পারে, যেমন রক্ত পাতলাকারক ঔষধ। আপনি যদি কোনও ঔষধ সেবন করেন তবে কচুর লতি খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।
লতি

কচুর লতি খাওয়ার সময় সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত:

  • যদি আপনার পেটের সমস্যা থাকে, তাহলে কচুর লতি সীমিত পরিমাণে খান।
  • যদি আপনার অ্যালার্জির ইতিহাস থাকে, তাহলে কচুর লতি খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।
  • যদি আপনার কিডনি স্টোনের ইতিহাস থাকে, তাহলে কচুর লতি সীমিত পরিমাণে খান।
  • আপনি যদি কোনও ঔষধ সেবন করেন তবে কচুর লতি খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

কচুর লতি’র রেসিপি:

কচুর লতি, বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় সবজি যা দিয়ে বিভিন্ন সুস্বাদু খাবার তৈরি করা যায়।

উপকরণ:

  • কচুর লতি – ৫০০ গ্রাম
  • পেঁয়াজ কুচি – ১ কাপ
  • আদা-রসুন বাটা – ১ টেবিল চামচ
  • হলুদ গুঁড়া – ১/২ চা চামচ
  • মরিচ গুঁড়া – ১/২ চা চামচ
  • জিরা গুঁড়া – ১/২ চা চামচ
  • ধনে গুঁড়া – ১/২ চা চামচ
  • লবণ – স্বাদমতো
  • তেল – ৩ টেবিল চামচ
  • ধনেপাতা কুচি – সাজানোর জন্য
কচুর লতি’র রেসিপি

প্রণালী:

  1. কচুর লতি ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।
  2. একটি পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজ কুচি বাদামী করে ভেজে নিন।
  3. আদা-রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, জিরা গুঁড়া, ধনে গুঁড়া এবং লবণ দিয়ে আরও কিছুক্ষণ নাড়ুন।
  4. মসলা কষানো হলে কচুর লতি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।
  5. ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন এবং মাঝারি আঁচে ৫-১০ মিনিট রান্না করুন।
  6. মাঝে মাঝে নেড়েচেড়ে দিন।
  7. পানি শুকিয়ে গেলে নামিয়ে পরিবেশন করুন।
  8. ধনেপাতা কুচি দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

টিপস:

  • আপনি চাইলে আরও স্বাদের জন্য কাঁচা মরিচ, টমেটো, বা আলু ব্যবহার করতে পারেন।
  • ঝাল পছন্দ করলে মরিচ গুঁড়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দিতে পারেন।
  • কচুর লতির তরকারি ভাত, রুটি, বা পরোটার সাথে খেতে খুব ভালো লাগে।

এখানে আরও কিছু কচুর লতির রেসিপি:

  • কচুর লতির ভর্তা: কচুর লতি সেদ্ধ করে পেঁয়াজ কুচি, লবণ, মরিচ, হলুদ, জিরা গুঁড়া, ধনে গুঁড়া দিয়ে ভেজে ভর্তা তৈরি করা হয়।
  • কচুর লতির ঝোল: কচুর লতি কেটে পেঁয়াজ কুচি, আদা-রসুন বাটা, লবণ, মরিচ, হলুদ, জিরা গুঁড়া, ধনে গুঁড়া, পানি দিয়ে রান্না করা হয়।
  • কচুর লতির ইলিশ পাতোরা: ইলিশ মাছের পেস্ট দিয়ে কচুর লতি ভরে পাতোরা তৈরি করা হয়।
error: Content is protected !!